নবীগঞ্জে প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা সায়মা সুলতানার বাসায় দিন-দুপুরে চুরি-
মতিউর রহমান মুন্না, নবীগঞ্জ থেকে ॥ নবীগঞ্জ উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা সায়মা সুলতানার বাসায় দিন-দুপুরে চুরি সংঘটিত হয়েছে। গতকাল রোববার সকাল ১১টার দিকে উপজেলা পরিষদের সামনে অবস্থিত মোতালিব ভবন নামের ভাড়াটিয়া বাসায় এ চুরির ঘটনা ঘটে। চোরেরা বাসায় থাকা নগদ আড়াই লক্ষ টাকা, ৯ ভরি স্বর্ণালঙ্কার ও একটি দামী মোবাইল ফোন নিয়ে গেছে বলে জানিয়েছেন শিক্ষা কর্মকর্তা সায়মা সুলতানা ও তার স্বামী ব্যাংক কর্মকর্তা আব্দুল কালাম।স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, দীর্ঘদিন ধরে নবীগঞ্জ শহরের ওসমানী রোডস্থ উপজেলা পরিষদের সামনে মোতালিব ভবনের ৩য় তলায় ভাড়া নিয়ে বসবাস করে আসছিলেন ওয়ান ব্যাংক কর্মকর্তা উপজেলার সিট ফরিদপুর গ্রামের আঃ কালাম ও তার স্ত্রী প্রাথমিক সহকারী শিক্ষা কর্মকর্তা সায়মা সুলতানা। তারা দুজনই দিনে থাকেন কর্ম ব্যস্ততায়। তারা জানান, গতকাল সকালে তারা দুজনই স্ব স্ব কর্মস্থলে চলে যান। ঘরে ছেলে ও মেয়ের সাথে থাকেন ফরিদা নামের তার এক বোন। ফরিদা বেগম তাদের ছেলে-মেয়েকে প্রতিদিনের ন্যায় উপজেলা শিশু শিক্ষা ও সাংস্কৃতিক একাডেমিতে নিয়ে যান। স্কুল থেকে ফিরে দেখেন মূল দরজার তালা ভাঙ্গা এবং ভিতরে আলমারি, ওয়ারড্রবের সব কিছু তছনছ।  এ ঘটনায় নবীগঞ্জ থানা পুলিশ ঘটনাস্থল পরির্দশন করেছে।সহকারী শিক্ষা কর্মকর্তা সায়মা সুলতানা জানান, তিনি ক্লাস্টারে ক্লাস করাচ্ছিলেন। এ সুযোগে চোরেরা ঘরের মূল দরজা ভেঙ্গে ৯ ভড়ি স্বর্ণালঙ্কার, আড়াই লক্ষ টাকা ও স্যামসাং ব্যান্ডের একটি দামী মোবাইল ফোন নিয়ে যায়। সহকারী শিক্ষা কর্মকর্তার বাসায় চুরির খবর পেয়ে উপজেলার বিভিন্ন বিদ্যালয়ের শিক্ষকরা গিয়ে ভীড় জমান ওই বাসায়। শহরের মূল সড়কে অবস্থতিত বাসাটিতে একাধিক পরিবারের বসবাস থাকা সত্ত্বেও দিন দুপুরে এমন ঘটনাকে রহস্যজনক বলেও মনে করছেন অনেকেই। এছাড়া প্রায় ১২ দিন পূর্বে উপজেলা কমপ্লেক্সের ভিতরে উপজেলা সার্ভার স্টেশন ও একটি বাড়ি একটি কামারের অফিসে চুরির ঘটনার রেশ কাটতে না কাটতেই এবার কমপ্লেক্সের সামনেই দিন-দুপুরে কর্মতার বাসায় চুরির ঘটনার অভিযোগ নিয়ে তোলপাড় শুরু হয়েছে। নবীগঞ্জ থানার এস আই সামছুল ইসলাম জানিয়েছেন- চোর চক্রকে সনাক্ত করে তাদেরকে ধরতে অভিযান অব্যাহত রয়েছে।
-