ভারতীয় সহকারী হাইকমিশনার কৃষ্ণমূর্তিকার আকস্মিক হবিগঞ্জ সফর ॥ মুক্তিযোদ্ধা অফিসে আলাপচারিতা -
স্টাফ রিপোর্টার ॥ বৃহস্পতিবার দুপুরে ভারতীয় সহকারী হাইকমিশনার এল এন কৃষ্ণমূর্তিকা আকস্মিক হবিগঞ্জ সফর করেছেন। তার এই সফর নিয়ে সাধারণ মানুষের মাঝে কৌতুহল সৃষ্টি হলে কমিশনার কৃষ্ণমূর্তিকা এক প্রতিক্রিয়ায় বলেন, এটি তাঁর ব্যক্তিগত সফর। তবে এই সফরকালে তিনি জেলা মুক্তিযোদ্ধা কমপ্লেক্স ভবন পরিদর্শন ও সভাকক্ষে সদ্য বিদায়ী জেলা কমান্ডার মুক্তিযোদ্ধা অ্যাডভোকেট মোহাম্মদ আলী পাঠান, ডেপুটি কমান্ডার মুক্তিযোদ্ধা গৌর প্রসাদ রায়, সদর উপজেলা কমান্ডার মুক্তিযোদ্ধা আব্দুস শহীদ সহ মুক্তিযোদ্ধাদের সাথে পরিচিতি সহ কথোপকথন করেন। এসময় তিনি তার বক্তব্যে বলেন, মুক্তিযোদ্ধাদের সাথে একত্রিত ও পরিচিত হতে পেরে নিজেকে তিনি ধন্য মনে করছি। তিনি আরও বলেন, ভারত সরকার বাংলাদেশের মুক্তিযোদ্ধাদের পাশে রয়েছে, আগামীতেও থাকবে। শিক্ষা-চিকিৎসাসহ নানাবিধ সহযোগিতা মুক্তিযোদ্ধাদের কল্যাণে ভারত সরকার সহযোগিতা চালিয়ে যাবে। এছাড়া তিনি মুক্তিযুদ্ধের সূচনাস্থল হবিগঞ্জের তেলিয়াপাড়া ডাকবাংলো প্রাঙ্গণে আগামী ৪ এপ্রিল মহাসমাবেশে আসার অভিপ্রায় ব্যক্ত করেন। এমন একটি জেলার মূল শহরে আসতে পেরে তিনি খুবই খুশী বলেও জানান। তিনি ’৭১ এর স্মৃতি বিজড়িত কিছু এতিহাসিক চিত্রও দেখেন। জেলা মুক্তিযোদ্ধা কমান্ড ইউনিটের সদ্য বিদায়ী কমান্ডার অ্যাডভোকেট পাঠানও ’৭১ সালে স্বাধীনতা যুদ্ধ চলাকালে এবং পরবর্তী সময়ে মুক্তিযোদ্ধাদের পাশে দাঁড়ানোর জন্য ভারত সরকারের প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেন।
মুক্তিযোদ্ধা সংসদে আলাপচারিতা শেষে সহকারি হাইকমিশনার হবিগঞ্জ রামকৃষ্ণ মিশনে যান এবং অধ্যক্ষ সহ সংশ্লিষ্ট সকলের সাথে একান্তে কথা বলেন। এছাড়াও তিনি হবিগঞ্জের শিল্পী কলাকুশলীদের সাথে পরিচিত হন এবং নিজের অভিব্যক্তি প্রকাশ করেন। এসময় উপস্থিত ছিলেন একাত্তরের ঘাতক দালাল নির্মূল কমিটির আহবায়ক সাংবাদিক রফিকুল হাসান চৌধুরী তুহিন। এদিকে কমিশনার হবিগঞ্জ আসলেও স্থানীয় জেলা বা পুলিশ প্রশাসনের কাউকে আগে অবহিত না করলেও গোপন সংবাদের ভিত্তিতে অল্প সময়ের ব্যবধানে তা জানতে পেরে তার নিরাপত্তা নিশ্চিত করে পুলিশ। সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মোঃ সহিদুর রহমান পুলিশ ফোর্স দিয়ে নিরাপত্তা জোরদার করেন। বিকেল সোয়া ৩টার দিকে সহকারী হাইকমিশনার কৃষ্ণমূর্তিকা সিলেটের উদ্দেশ্যে হবিগঞ্জ ত্যাগ করেন।
-