বানিয়াচংয়ে প্রতিপক্ষের টেটার আঘাতে এক নারী নিহত ॥ বাড়িঘর ভাংচুর আহত ৪-
স্টাফ রিপোর্টার ॥ বানিয়াচং উপজেলার কাটখাল গ্রামে জমি সংক্রান্ত বিরোধকে কেন্দ্র করে একের পর এক হামলা মামলার ঘটনা ঘটছে। সালিশের মাধ্যমে মামলা তুলে নেয়ার প্রস্তাব না মানায় প্রতিপক্ষের বাড়ি-ঘরে হামলা ও ভাংচুর করে চারজনকে আহত করেছে প্রতিপক্ষের লোকজন। তাদের মধ্যে টেটাবিদ্ধ এক নারী মারা গেছেন। শনিবার দুপুরে এ ঘটনা ঘটে।
স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, কাটখাল গ্রামের পাতনী বাড়ীর মৃত রিয়াত উল্লাহর ছেলে আব্দুস শহীদ ও চৌকিদার বাড়ীর নেতৃত্বে ১১টি গোষ্ঠীর সাথে একই গ্রামের হাজী ছিদ্দেক আলীর ছেলে কাছুম আলীর লোকজনের জমিসংক্রান্ত বিষয় নিয়ে দীর্ঘদিন যাবৎ বিরোধ চলে আসছে। এ নিয়ে দু’পক্ষের মাঝে একাধিকবার সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে। এ ব্যাপারে আদালতে বেশ কয়েকটি মামলা চলমান রয়েছে। আব্দুস শহীদের লোকজন সালিশের মাধ্যমে মামলা প্রত্যাহারের জন্য চাপ প্রয়োগ করে কাছুম আলীর লোকজনকে। শনিবার সকালে এ নিয়ে উভয়পক্ষের মাঝে উত্তেজনা সৃষ্টি হলে বানিয়াচং থানার এসআই ফিরুজ আল মামুন কাটখাল গ্রামে উপস্থিত হয়ে উভয়পক্ষকে শান্ত করেন এবং কোন ধরনের সংঘর্ষে লিপ্ত না হওয়ার অনুরোধ জানান। বেলা পৌনে ১টার দিকে এই নিষেধ না মেনে আব্দুস শহীদের লোকজন দেশীয় অস্ত্র নিয়ে কাছুম আলীর বাড়ীতে এসে হামলা ও ভাংচুর চালায়। সংঘর্ষে বুকে টেটাবিদ্ধ হয়ে গুরুতর আহত আব্দুর রকিবের স্ত্রী মিনারা খাতুনকে (৩৫) ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল এবং পায়ে টেটাবিদ্ধ হাজী ছিদ্দেক আলীর ছেলে উসমান আলীকে (৩৮) সিলেট এমএজি ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে প্রেরণ করা হয়। অপর আহত মৃত আদম আলীর ছেলে কুতুব আলী (২২) এবং হাজী ছিদ্দেক আলীর ছেলে মাওলানা আইয়ু বিন ছিদ্দিককে হবিগঞ্জ আধুনিক জেলা সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।
মিনারা বেগমের আত্মীয় মাওলানা লুৎফুর রহমান জানান, ঢাকা ন্যাশনাল হার্ট ফাউন্ডেশনে চিকিৎসাধীন অবস্থায় আহত মিনারা বেগম রাত প্রায় সাড়ে ১০টায় মারা গেছেন।
এ ব্যাপারে অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (সার্কেল) শৈলেন চাকমার সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি জানান, ঘটনাটি তিনি শুনেছেন।
আহতরা জানান, পুলিশের বাধা স্বত্ত্বেও আব্দুস শহীদের লোকজন তাদের বাড়িতে এসে ত্রাস সৃষ্টি করে ভাংচুর এবং মারপিট করে।
বানিয়াচং থানার ওসি রাশেদ মোবারক বলেন, বর্তমানে ওই এলাকার পরিস্থিতি শান্ত রয়েছে। ফের সংঘর্ষ এড়াতে অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে।

-
প্রথম পাতা