ম্যানেজার কামাল গভীর রাতে আশুগঞ্জে ছিনতাইকারীদের ছুরিকাঘাতে নিহত-
হবিগঞ্জ শহরের প্লাস্টিক ডোর কোম্পানীর ম্যানেজার কামাল গভীর রাতে আশুগঞ্জে ছিনতাইকারীদের ছুরিকাঘাতে নিহত
সএম সুরুজ আলী ॥ হবিগঞ্জ শহরের আনোয়াপুর বাইপাস রোডের শাকিব প্লাস্টিক ডোর কোম্পানীর ম্যানেজার কামাল আহমেদ (৩৫) আশুগঞ্জে ছিনতাইকারীদের ছুরিকাঘাতে নিহত হয়েছেন। এ ঘটনায় সন্দেহজনক হিসেবে পিকআপ ভ্যান চালক নাসির উদ্দিনকে আটক করেছে পুলিশ। নিহত কামাল আহমেদ হবিগঞ্জ সদর উপজেলার নিজামপুর ইউনিয়নের সুয়ারগাঁও এলাকার আব্দুল হাই মিয়ার ছেলে। তিনি হবিগঞ্জ সদর উপজেলা ছাত্রদলের সাবেক যুগ্ম আহ্বায়ক।
সূত্র জানায়, কামাল আহমেদ হবিগঞ্জ শহরের আনোয়াপুর বাইপাস রোডের শাকিব প্লাস্টিক ডোর কোম্পানীর ম্যানেজার হিসেবে চাকুরী করে আসছিলেন। সোমবার বিকেল ৩টার দিকে কোম্পানীর পিকআপ ভ্যান নিয়ে মালামাল ক্রয় করার জন্য আশুগঞ্জের উদ্দেশ্যে রওয়ানা দেন। সেখান থেকে মালামাল নিয়ে রাতেই একটি পিকআপ ভ্যানে করে হবিগঞ্জ ফিরছিলেন কামাল আহমেদ। রাত দেড়টার দিকে ঢাকা-সিলেট মহাসড়কের আশুগঞ্জ উপজেলার বাহাদুরপুর এলাকায় একটি সিএনজিচালিত অটোরিকশা নিয়ে কয়েকজন এসে পিকআপটির গতিরোধ করে। এক পর্যায়ে তারা পিকআপে উঠে ভয়ভীতি দেখিয়ে তা নিজেদের নিয়ন্ত্রণে নিয়ে নেয়। এ সময় একজন পিকআপটি চালিয়ে তালশহর-বাহাদুপুর সড়কে নিয়ে যায়। সেখানে ছিনতাইকারীরা কামাল আহমেদকে ছুরিকাঘাত করে রাস্তায় ফেলে দেয়। এ সময় পিকআপের চালক নাসির মিয়া লাফিয়ে পড়ে পুলিশকে খবর দেয়। আশুগঞ্জ থানা পুলিশ খবর পেয়ে রাতেই বিভিন্ন স্থানে অভিযান চালায়। সকালে তালশহর-বাহাদুরপুর সড়ক থেকে কামাল আহমেদের লাশ উদ্ধার করে পুলিশ। পরে ব্রাহ্মণবাড়িয়া সদর উপজেলার সাদেকপুর ইউনিয়নের দামচাইল বাজার এলাকা থেকে পিকআপটি উদ্ধার করা হয়। আশুগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. বদরুল আলম তালুকদার জানান, ছিনতাকারীরা রাত দেড়টা থেকে ২টার মধ্যে হত্যাকান্ডটি ঘটিয়েছে। আমরা লাশ উদ্ধার করে ময়না তদন্ত সম্পন্ন করে নিহতের স্বজনদের নিকট হস্তান্তর করেছি। এ ঘটনার রহস্য উদঘাটনের জন্য পিকআপ ভ্যান চালক বানিয়াচঙ্গ উপজেলার পুকড়া গ্রামের নাসির উদ্দিনকে থানায় আটক রেখে জিজ্ঞাসাবাদ করছি। ওসি জানান, নিহতের বুকে ও পায়ে ছুরিকাঘাতের চিহ্ন রয়েছে।
আশুগঞ্জ থানার পুলিশ পরিদর্শক (তদন্ত) মো. মেজবাহ উদ্দিন জানান, রাতে টহল পুলিশ বাহাদুরপুর-তালশহর আঞ্চলিক সড়ক দিয়ে যাওয়ার সময় সড়কের উপরে এক যুবকের মরদেহ পড়ে থাকতে দেখে। পরে মরদেহটি উদ্ধার করে। এ সময় তার পকেটে থাকা একটি কাগজের মাধ্যমে তার নাম পরিচয় জানতে পারে পুলিশ। তিনি আরো জানান, নিহতের বুকের দু’পাশে তিনটি আঘাতের চিহ্ন রয়েছে। এ ঘটনার সাথে জড়িতদের গ্রেফতার করতে পুলিশ বিভিন্ন স্থানে অভিযান চালাচ্ছে।
হবিগঞ্জ শহরের আনোয়াপুর বাইপাস রোডের শাকিব প্লাস্টিক ডোর কোম্পানীর স্বত্ত্বাধিকারী ইকবাল কবির ছোটন জানান, নিহত কামাল আহমেদ আমাদের এখানে ম্যানেজারের চাকুরী করতেন। সোমবার বিকেলে তিনি পিকাআপ ভ্যান নিয়ে আশুগঞ্জে প্লাস্টিক তৈরির মালামাল আনার জন্য যান। গতকাল সকালে খবর পেলাম কামাল ছিনতাইকারীদের হাতে নিহত হয়েছেন। এ ঘটনায় আমরা মামলা দায়েরের প্রস্তুতি নিয়েছি। নিহত কামাল আহমেদের প্রতিবেশি হবিগঞ্জ জেলা ছাত্রদলের সাবেক সভাপতি মহিবুল ইসলাম শাহীন জানান, কামালের স্ত্রী আমাদের জানিয়েছে, সোমবার রাত ১২টার দিকে সে তার সাথে কথা বলেছে। রাত সাড়ে ১২টার পর থেকে তার মোবাইল ফোন বন্ধ পাওয়া যায়। সকালে খবর আসে কামাল ছিনতাইকারীদের হাতে নিহত হয়েছে। ব্যক্তিগত জীবনে কামাল ১ কন্যা ও ১ পুত্র সন্তানের জনক।
এদিকে, কামাল আহমেদের লাশ বাড়িতে আনা হলে তাকে শেষ বারের মত দেখার জন্য বাড়িতে স্বজন ও দলীয় নেতাকর্মীদের ভিড় জমে। এ সময় অনেকে কান্নায় ভেঙ্গে পড়েন। গতকাল রাত ৯টার দিকে জানাজার নামাজ শেষে তার লাশ পারিবারিক কবরস্থানে দাফন করা হয়।

-